বাংলায় ইসলাম প্রচারে পীর-আউলিয়াদের ভূমিকাঃ একটি তুলনামূলক বিশ্লেষণ - মুহাম্মদ সৈয়দুল হক

বাংলায় ইসলাম প্রচারে পীর-আউলিয়াদের ভূমিকাঃ একটি তুলনামূলক বিশ্লেষণ


বাংলায় ইসলাম প্রচারের প্রসঙ্গ এলে একটা পক্ষ কোনোকিছু না ভেবে সোজাসাপটা বলে বসে – মুসলিম শাসকরাই এতে প্রধান ভূমিকা রেখেছে। একই পক্ষের দাবিতে দ্বিতীয় স্থানে আছেন আরব বণিকরা। কিন্তু বাংলায় ইসলাম প্রচারে সবচেয়ে জোরালো ভূমিকা রাখা পীর-আউলিয়াদের নাম নিতে তাদের রহস্যময় অনীহা লক্ষ্যনীয়। আলোচনার কোনো এক কোণে তাঁদের প্রসঙ্গ আনলেও তা নিতান্ত গৌণ। বিষয় হিসেবেই উপস্থাপন করতে দেখা যায়। অথচ মুসলিম শাসকরা শাসন প্রতিষ্ঠা করলেও ইসলাম প্রচারে তাদের উল্লেখযোগ্য ভূমিকা নেই বললেই চলে। অপরদিকে আরব বণিকরা প্রাচীনকাল থেকে এদেশে বাণিজ্যের প্রসার ঘটালেও ইসলাম ধর্মপ্রচারে তাদের ভূমিকা নিতান্তই সামান্য।


বিখ্যাত পরিব্রাজক ইবনে বতুতা বাংলায় সফরকালে পনেরো দিনব্যাপী মেঘনা নদী হয়ে ভ্রমণ করেন। ভ্রমণেশেষে এ অঞ্চলের বৈশিষ্ট্য উল্লেখ করতে গিয়ে তিনি লিখেছেন, “মুসলিম শাসনাধীন কাফেরদের অঞ্চল।” ইবনে বতুতা, ১৯৬৯, পৃষ্ঠা ২৬৭। উল্লেখ্য, ইখতিয়ার উদ্দিন মুহাম্মদ বিন বখতিয়ার খলজি বঙ্গবিজয় করেন ১২০৩ সালে, আর ইবনে বতুতা বাংলায় আসেন ১৩৪৬ সালে। মাঝে প্রায় দেড়শ বছর। এ থেকে প্রথমত মুসলিম শাসকদের ইসলাম প্রচারের ভূমিকা কতটুকু তা স্পষ্ট হয়ে যায়, দ্বিতীয়ত নাস্তিক ও হিন্দুদের আপত্তি তরবারির জোরে এ-দেশে ইসলাম প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বা মুসলিম শাসকরা গণহারে হিন্দু-বৌদ্ধদের ধর্মান্তরিত করেছে—এ ধরনের আপত্তিও মাটিচাপা পড়ে যায়। কারণ, গণহারে ধর্মান্তরিত করা হলে বাংলায় মুসলমান সংখ্যাধিক্য হতে দেড়শ বছর লাগার কথা না। মজার বিষয় বাংলায় মুসলমান সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে উনিশ শতকে। (H. Brverley, census of bengal, 1872) ততদিনে বাংলায় মুসলিম শাসন পেরিয়ে বৃটিশ শাসন কায়েম হয়ে গেছে। তারমানে বাংলায় মুসলিম শাসন প্রতিষ্ঠার প্রায় সাতাশ বছর লেগেছে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করতে। মুসলিম শাসকরাই যদি এ দেশে ইসলাম প্রতিষ্ঠা করতে ধর্মান্তর প্রক্রিয়া বাস্তবায়ন করতেন, তবে দীর্ঘ সাতাশ বছরে অন্য ধর্মাবলম্বী খোঁজে পাওয়াই দুষ্কর হয়ে পড়তো। হ্যাঁ, বিচ্ছিন্ন দুয়েকটি ঘটনা ইতিহাসে এমন পাওয়া যায় বটে, কিন্তু সামগ্রিক ইতিহাস এ কথা কখনোই প্রমাণ করে না। পুরো ভারতবর্ষের ইতিহাসে একবার চোখ বুলালেও বিষয়টা জলবৎ তরলং হয়ে যায়। দীর্ঘ সাড়ে ছয়শ বছর রাজ করেও দিল্লিতে মুসলিমরা ছিল সংখ্যালঘু।


কথায় কথায় আসে আরব বণিকদের কথা। ব্যবসার উদ্দেশ্যে প্রাচীনকাল থেকে তাদের আগমন। কিন্তু ইসলাম প্রচারে তাদের অবদান সে অর্থে খুব বেশি নয়। একটি বিষয় এ কথা প্রমাণ করার জন্য যথেষ্ট। বণিকরা প্রাচীনকাল থেকেই বাংলা চেনেন, জানেন। বাণিজ্য করেছেন বছরের পর বছর। কারো কারো বসতবাড়িই প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বঙ্গে। অথচ, তারা কখনো স্থানীয়দের এইটুকু প্রভাবিত করতে সমর্থ হননি যে, দীর্ঘ এ ব্যাবসায়ী যাত্রায় বহুসংখ্যক তিনধর্মীকে মুসলিম করে তুলবেন। যদি তা-ই হতো, তবে এ দেশের অধিকাংশ মুসলিম হতো শাফেয়ি মাজহাবের অনুসারী। কেননা সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে, বণিকদের অধিকাংশ শাফেয় মাজহাবের অনুসারী: (বাংলায় ইসলাম প্রচারে সাফল্য একটি ঐতিহাসিক বিশ্লেষণ, তৃতীয় সংস্করণ ২০২২, আকবর আলি খান, প্রথমা প্রকাশন।)


অপরপক্ষে পীর-আউলিয়াদের ভূমিকা এ দেশের মাটি-জলে মিলেমিশে একাকার হয়ে আছে। দেশজুড়ে বিস্তৃত অঞ্চলে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা অসংখ্য মাজার, খানকাহ কালের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। আজকাল এক শ্রেণির মানুষ অি মুসলিমদের কথায় কথায় মাজারপূজারী বলে তাচ্ছিল্য করে স্বর্গসুখ লাভ করতে দেখা যায়। অথচ ইসলামের প্রচার-প্রসার কিংবা ভিনধর্মীদের মুসলিম বানানোর ক্ষেত্রে শুধু পীর-আউলিয়ারাই নন, তাঁদের মাজারেরও বিরাট ভূমিকা রয়েছে। ডিসকাভারি অফ বাংলাদেশ গ্রন্থের উদ্ধৃতি দীর্ঘ সময় ধরে পীরদের সঙ্গে মিথস্ক্রিয়ার মাধ্যমে ব্যক্তিরা ধর্মান্তরের সিদ্ধান্ত নেয়। এই মিথস্ক্রিয়া শুধু জীবিত পীরদের ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধ নয়, এই মিথস্ক্রিয়া মৃত পীরদের মাজারের সঙ্গেও চলে। ব্যক্তিপর্যায়ে ধর্মান্তরে কয়েক শ বছর লাগতে পারে। গোত্র ধর্মান্তর অল্প সময়ে হতে পারে। গোত্র ধর্মান্তরের জন্য প্রয়োজন উপজাতি বা গ্রাম সমাজের মতো জনগোষ্ঠী। এ ধরনের জনগোষ্ঠী বাংলায় আদৌ ছিল না।” (ডিসকভারি অফ বাংলাদেশ, আকবর আলি খান।)


উল্লিখিত তথ্য থেকে এ কথা সুস্পষ্ট যে, পীর-আউলিয়ারা নন কেবল, ইসলাম প্রচারে তাঁদের মাজারেরও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। বলা বাহুল্য মাজারে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকল জাতের মানুষের যাতায়াত উন্মুক্ত। ভিনধর্মী হওয়া সত্ত্বেও মাজার ওয়ালার কাছ থেকে ফয়েজ কিংবা উপকৃত হওয়ার দৃষ্টান্ত অহরহ। আর এভাবেই বাংলার মানুষ ইসলামের প্রতি উদ্দীপ্ত হয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন।


উদাহরণ দেওয়া যায় সিলেট-বিজেতা হজরত শাহ জালাল (রা.) কে। তিনি যখন সেনাপতি নাসির উদ্দিন সিপাহসালারের সঙ্গে সিলেট যাত্রা করেন, তখন সিলেটের রাজা ছিল গৌড় গোবিন্দ। শেখ বোরহান উদ্দিন রহ, পুত্রের আকিকায় গরু জবেহ করেছিলেন বলে পুত্রকেই শহিদ করে দেয় অত্যাচারী হিন্দুরাজা। অতঃপর শাহ জালালের সিলেট জয়ের পর তিনি আর তাঁর মুরিদ-খলিফাদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টার ফলে ধীরে ধীরে পুরো সিলেটবাসী ইসলামের ছায়াতলে আসতে থাকে। বলা বাহুল্য এটিও দিনেদিনে হয়ে যায়নি, শাহজালালের উত্তরসূরীরাও কালের পর কাল ধর্মপ্রচারে নিরলস ব্রতী হয়েছেন। (জালালাবাদের কথা, দেওয়ান নুরুল আনোয়ার হোসেন চৌধুরী।)


সিলেট ছেড়ে রাজশাহী অঞ্চলে দৃষ্টি দিলে প্রথমে নজর পড়বে শাহ মখদুম রহ এর মাজারের দিকে। ইতিহাস বলছে, দু-দুজন প্রতাপশালী হিন্দুরাজার সঙ্গে যুদ্ধ করে রাজশাহী জয় করেছিলেন তিনি। এবং তাঁর পক্ষ হয়ে যারা যুদ্ধ করেছিলেন, তারা কেউ-ই বহিরাগত নয়, সবাই তাঁর আদর্শ ও আধ্যাত্মিকতায় মুগ্ধ হয়ে ইসলাম কবুল করা মুসলিম। শুধু মুসলিম নয়, ইসলাম কবুল না করলেও অনেক ভিনধর্মী তাঁর পক্ষ নিয়েছিলেন শুধু আদর্শগত কারণে। পরবর্তীতে তাঁকে আর তাঁর মাজারকে ঘিরে রাজশাহী অঞ্চলে ইসলামের বিপ্লব সাধিত হয়। (শাহ মখদুম রূপোশ যুগ মানস (২য় সংস্করণ)। শাহ মখদুম রূপোশ দরগা এস্টেট, রাজশাহী।মোঃ আবুল কাসেম।) এভাবে খুলনা অঞ্চলে খান জাহান আলী রহ. এর কথা কে না জানে। তাঁর সমাজ-সংস্কারের কথা ইতিহাসে অমলিন। ইতিহাসবিদ ইটন তাঁকে 'entrepreneur peer' তথা 'উদ্যোক্তা পীর' বলে আখ্যায়িত করেছেন। তাঁর সম্পর্কে ইটন আরো লিখেছেন, “khan jahan was clearly an effective leader, since superior organisation skills and abundant manpower were necessary for transforming the region's formerly thick jungle into rice field: the land had to be embanked along streams in order to keep the salt water out, the forest had to be cleared, thanks had to be dug for water supply and storage, and huts had to be built for the workers." (Richard m Eaton 1994, p 210)


ইটনের উদ্ধৃতিতে দেখা যায় খানজাহান আলী রা, শুধু ইসলাম প্রচারে ক্ষান্ত হননি, তিনি সমাজ বিনির্মানে উদ্যোগী হয়েছিলেন। মানুষের প্রয়োজনে বনজঙ্গল কেটে বসতি, রাস্তাঘাট, পানির প্রয়োজনে দিঘি খনন ইত্যাদি কাজে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন। বস্তুত পীর, আউলিয়া কিংবা সুফিরা আদর্শগতভাবেই সমাজ বিনির্মাতা। তাঁরা মানুষকে শুধু আধ্যাত্মিক প্রেরণাই দেননি, বেঁচে থাকার জন্য সুস্থ সামাজিক পরিবেশও সৃষ্টি করে দিয়েছেন।


প্রাচীনকাল থেকে রাজা-বাদশাহ, নবাব-জমিদারদের বাসস্থান ঢাকা অঞ্চলেও পীর আউলিয়ারা ইসলাম প্রচারে এগিয়ে। বাবা আদম শহিদ রহ., শাহ সুলতান বলখি রহ., শাহ আলী বোগদাদি রহ., সায়্যিদ শাহ নেয়ামত উল্লাহ বুৎ-সাকেন রহ., শেখ শরফুদ্দীন আবু তাওয়ামা রহ. (নারায়ণগঞ্জ) সহ অসংখ্য পীর-আউলিয়ার ইসলাম প্রচার ঢাকাকে সমৃদ্ধ করেছে।


অলি-আল্লাহদের পুণ্যভূমি চট্টগ্রামের কথা না বললেই নয়। বদর পীরের চাটগাঁ এখন 'মদিনাতুল আউলিয়া' নামে খ্যাত। বছরের পর বছর পীর আউলিয়ারা সেখানে নিজেদের বসতি স্থাপন করেছেন। হিন্দু-অধ্যুষিত অঞ্চলে তাওহিদের কাতা উড়িয়েছেন। গরিব উল্লাহ শাহ, আমানত শাহ, মিসকিন শাহ, শাহ মোহসেন-সহ অগুনতি আউলিয়ায়ে কেরামের আবাসভূমি চট্টগ্রাম। তাঁদের বৈপ্লবিক প্রচেষ্টায় এই গুলজারে সিরিকোট অঞ্চলে ইসলাম প্রতিষ্ঠিত। তবে এ অঞ্চলে পুরোপুরি ইসলাম প্রতিষ্ঠার সবচেয়ে বড়ো বিপ্লব সংগঠিত হয় উনিশ শতকে মাইজভাণ্ডারী তরিকা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে। গাউছুল আজম হজরত আহমদুল্লাহ ক. এবং গোলামুর রহমান ক. মাইজভাণ্ডারীর আধ্যাত্মিক প্রভাব চট্টগ্রাম ছাড়িয়ে অন্যান্য অঞ্চলেও ছড়িয়ে পড়ে। তাঁদের প্রেমময় তরিকার মাধ্যমে দলে দলে মানুষ ইসলামের ছায়াতলে ভীড় করে। তাঁদের আবির্ভাবের আগে চট্টগ্রামের মুসলিমদের হার যেখান ৬০-৬৫ শতাংশ, সেখানে একশ বছরের ব্যবধানে মুসলিমদের হার ৮০-৮৫ শতাংশে রূপ নেয়। (H. Brverley, census of bengal, 1872 ) উল্লেখ্য, এদেশে স্থায়ীভাবে বসতি স্থাপন করা পীর-আউলিয়ারাই কেবল ইসলাম প্রচারে ভূমিকা রাখেননি, বরং অস্থায়ীভাবে আসা পীর-আউলিয়ারাও যুগে যুগে ইসলাম প্রচারে ভূমিকা রেখেছেন। চট্টগ্রাম জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া কামিল মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা হজরত আহমদ শাহ সিরিকোটি রহ, এবং তাঁর বংশধরদের ভূমিকা সবার নখদর্পনে।


সুতরাং বাংলায় ইসলাম প্রচার পীর-আউলিয়া তথা সুফি-সাধকদের ভূমিকা সর্বাগ্রে। সুদীর্ঘ সময় ধরে তারা বাংলার মাটি-জলে একাকার হয়ে এ দেশে ইসলাম প্রতিষ্ঠিত করেছেন। একটি উদ্ধৃতি দিয়ে শেষ করি— “বাংলায় ইসলাম প্রচার করেছেন মূলত সুফি সাধকেরা। এঁরা সমুদ্রপথে বাংলায় আসেননি, এসেছেন স্থলপথে। ত্রয়োদশ শতকে মুসলিম শাসন প্রতিষ্ঠার ফলে মধ্যপ্রাচ্যের মুসলমানদের সঙ্গে বাংলার যোগাযোগ অনেক বেড়ে যায়। তাই অনুমান করা হয় যে, ত্রয়োদশ শতক থেকে শুরু করে বাংলাদেশে বড় ধরনের ধর্মান্তর প্রক্রিয়া শুরু হয়। তবে মুসলমান শাসন প্রতিষ্ঠার সঙ্গে সঙ্গেই বাংলায় ইসলাম দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়েনি, এ পক্রিয়া অত্যন্ত দীর্ঘ সময় ধরে চলে।” বাংলায় ইসলাম প্রচার সাফল্য, আলি আকবর খান।

মুহাম্মদ সৈয়দুল হক
শিক্ষার্থী, জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া কামিল মাদরাসা।


Tags

#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !